ভান্ডার...

ভারতীয় হাই কমিশন

ঢাকা

**** 

ভান্ডারিয়া পৌরসভার জনগণের জন্য ১১টি জল শোধনাগার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে হাইকমিশনারের বক্তব্য

(০৩ ডিসেম্বর ২০১৭, পিরোজপুর)

মাননীয় পরিবেশ  বন মন্ত্রী জনাব আনোয়ার হোসেন মঞ্জু

জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব মহিউদ্দিন মহারাজ

পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক জনাব খায়রুল আলম শেখ

 পুলিশ সুপার জনাব সালাম কবির এবং 

বিশিষ্ট অতিথিবৃন্দ, 

আজ পিরোজপুরে আসতে পেরে আমি দারুণ আনন্দিত। আমি সবসময় সোনার বাংলা-র এই অপরূপ অংশে ভ্রমণ করতে চেয়েছি এবং আপনাদের মধ্যে এসে আমি অপার আনন্দ অনুভব করছি। 

২. ভারত বাংলাদেশে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করেছে, যা আমাদের সম্পর্কের সবচেয়ে মূল্যবান উল্লেখযোগ্য বিষয়গুলির একটি। আমি এটি জানাতে পেরে খুশি যে গত পাঁচ বছরে ভারত সরকার বাংলাদেশে ১১১ কোটি টাকা ব্যয়ে মোট ২৪টি প্রকল্প সম্পন্ন করেছে। আমরা আন্তরিকভাবে আশা করি যে এই ক্ষুদ্র অবদান বাংলাদেশে আমাদের বন্ধুদের জীবনে একটি গুণগত পরিবর্তন আনবে।

৩. এরই পরিপ্রেক্ষিতে আজ আমরা ভান্ডারিয়া উপজেলায় ১১টি জল শোধনাগার স্থাপনের কাজ উদ্বোধন করছি। আমরা খুবই গর্বিত যে এই জল পরিশোধন প্রকল্পগুলো ভান্ডারিয়া এর নিকটবর্তী পৌরসভার ১.৫ লক্ষ মানুষকে বিশুদ্ধ মিষ্টি পানীয় জল সরবরাহ করবে। এই কাজের জন্য ভারত সরকার ভান্ডারিয়া মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনকে ১১.৫০ কোটি টাকা সরাসরি নগদ অনুদান দিচ্ছে। প্রকল্পটির কাজ দ্রুত শুরু করার লক্ষ্যে ২০১৭ সালের অক্টোবরে ভান্ডারিয়া মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনকে আগাম ২.২০ কোটি টাকা প্রদান করা হয়েছিল। 

৪. এই প্রকল্পের আওতায় আনুমানিক ৬০০ ফুট গভীরতাসম্পন্ন ১১টি গভীর নলকূপ স্থাপন করা হবে। প্রতিটি নলকূপ স্থাপিত এলাকায় একটি করে নির্দিষ্ট জল শোধনাগারও স্থাপন করা হবে। পরিশোধিত জল ১১টি এলাকার প্রতিটিতে ৪০০০০ লিটার করে বৃহৎ ট্যাংকে সংরক্ষণের জন্য তোলা হবে। পানোপযোগী করার জন্য প্রতিটি জল শোধনাগারে জল থেকে ভারী ধাতু, আর্সেনিক ও লবণাক্ততা অপসারণ করা হবে। প্রকল্পের কাজ আগামী  মাসের মধ্যে সম্পন্ন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। 

বন্ধুগণ, 

৫. যদিও ভারত সরকার জল শোধনাগারগুলি স্থাপনে সহযোগিতা করছে তবে তার সম্পূর্ণ কৃতিত্ব মাননীয় পরিবেশ  বন মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু-র, যাঁর উদ্যোগে প্রকল্পটি হাতে নেয়া হয়েছে বাস্তবায়িত হচ্ছে। মাননীয় মন্ত্রী ভারত বাংলাদেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের এক দৃঢ় সমর্থক। তিনি ভারতের একজন ভাল বন্ধুও বটে। আমি এই সুযোগে মাননীয় মন্ত্রীকে তাঁর প্রচেষ্টার জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি। 

৬. শেষ করার আগে, এই সুযোগে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য আমি মাননীয় মন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমি এই প্রকল্পটির জন্য ভান্ডারিয়া পৌরসভার চেয়ারম্যান সদস্যবৃন্দ এবং ভান্ডারিয়াবাসীদের আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। 

সবাইকে ধন্যবাদ।

****

 
 
 


ঠিকানা: ভারতীয় হাই কমিশন
প্লট নং. ১-৩, পার্ক রোড, বারিধারা, ঢাকা-১২১২
কর্ম ঘন্টা: সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫:৩০ মিনিট পর্যন্ত
(রবিবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত)
টেলিফোন নম্বরসমূহ: +৮৮০-২-৫৫০৬৭৩৬৪
ইপিএবিএক্স: +৮৮০-২-৫৫০৬৭৩০১-৩০৮ এবং +৮৮০-২-৫৫০৬৭৬৪৫-৬৪৯
ফ্যাক্স নম্বর: +৮৮০-২-৫৫০৬৭৩৬১